নিজের ঘর আমাদের সবারই প্রিয় স্থান। বাড়িঘর পরিচ্ছন্ন থাকলে যেমন দেখতে ভালোলাগে তেমনি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্যও উপকারী। অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে জীবাণুদের আস্তানা গড়ে ওঠে সেকথা কে না জানে!আমাদের ঘর বাড়ি জীবাণুমুক্ত রাখতে চাইলে নিয়মিত পরিষ্কার করা জরুরি। চলুন জেনে নেই বাড়ি পরিষ্কার রাখার সহজ ৫টি উপায়-

ধুলো ঝাড়ার সঠিক সামগ্রি: শুকনো কাপড় দিয়ে ধুলো ঝাড়লে তখন তা বাতাসে ভেসে বেড়ায়। ফলে সারা বাড়ি আবার ধুলোময় হয়ে যায়। সবসময় চেষ্টা করুন মাইক্রোফাইবার র্যাগ দিয়ে ধুলো পরিস্কার করতে। এগুলো একটু মোটা ফ্যাব্রিকের হয় ফলে ধুলো এর মধ্যে আটকে যায়। পরে এই কাপড়গুলো ধুয়ে শুকিয়ে আবার ব্যবহার করতে পারেন।

উপর থেকে পরিষ্কার করা শুরু করুন: মনে করেন আপনি ড্রেসিং টেবিল বা অন্যান্য আসবাবের ধুলো ঝাড়তে চান, তাহলে ওপর থেকে ঝাড়া আরম্ভ করুন। এতে ওপরের ময়লা নিচে পড়বে এবং খুব সহজে নিচটা পরিষ্কার করে নিতে পারবেন। আপনার খাটুনিও অনেকটা কম হবে।

কার্পেট পরিষ্কার করুন: বর্তমান সময়ে অনেকের বাড়িতেই মেঝেতে কার্পেট বেছানো থাকে। কিন্তু কার্পেটে ধুলো আর ময়লা সব থেকে বেশি জমে। ঝাঁটা দিয়ে কার্পেট পরিস্কার করতে যায় না, এতে নাকে মুখে ধুলো ছিটে অ্যালার্জি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তার চেয়ে সপ্তাহে একবার অন্তত ভ্যক্যুয়াম ক্লিনার দিয়ে কার্পেট পরিষ্কার করুন।

যেখানে হাত পৌঁছায় না: আমাদের বাড়িতে এরকম অনেক জায়গা থাকে, যেখানে সহজে হাত পৌঁছায়না। যেমন ধরুন, খাটের তলায়, সোফার পেছনে কিম্বা ইলেকট্রনিক জিনিসের ভেতরে। টিভি, ক্যাবিনেট, এসব জায়গা নিয়মিত ভ্যক্যুয়াম ক্লিনার দিয়ে পরিষ্কার করুন। আবার বাড়ির অন্যান্য জায়গার তুলনায় সিলিং ফ্যান কম পরিস্কার করা হয়। কিন্তু সবচেয়ে বেশি ময়লা, ধুলো এবং ঝুল কিন্তু ওখানেই জমে। মাসে অন্তত দু’বার ভেজা কাপড় দিয়ে ফ্যান পরিস্কার করুন যাতে ধুলো না জমে।

যেখানে ধুলো বেশি জমে: বালিশের ভেতরে, বিছানার গদির নিচে, জানালার খাঁজে, পাপোষের নিচে, আলমারির ভেতরে- এইসব জায়গাগুলোতে ভ্যক্যুয়াম ক্লিনারের বিভিন্ন পার্টস ব্যাবহার করে জায়গাগুলো পরিষ্কার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *